February 2017
৬৪ জেলার ইতিহাস Aparupa Bengali Romantic Movie অন্যান্য অপরুপা অর্থিনীতির সংবাদ আইন-আদালত বিষয়ক পরামর্শ আকাঙ্খা আজিজুন নাহার আঁখির লেখা আঞ্চলিক সংবাদ আন্তর্জাতিক খবর আমার জীবন আমার স্বাস্থ আল্লামা মাহমুদুল হাসান ইচ্ছে ইতিহাস উন্নত স্বাস্থ কথা ঐতিহ্য কঙ্কাল কবিতা কয়েসাবা'র লেখা কিভাবে নিঃস্ব হয় শেয়ার মার্কেট খালিদ বিন আকরামের লেখা খেলা খেলাধুলা গ্রাম্য কবিতা চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষার খবর চাটুকার ছোট গল্প জাতীয় জাতীয় সংবাদ জিবাংলা আঞ্চলিক সংবাদ জীবনযাপন জেসমিন আকতারের লেখা জ্বীন-পরী ড: আসিফ নজরুল ডাক্তারদের মহানুভবতা তথ্য এবং প্রযুক্তির সংবাদ এবং পরামর্শ তথ্য বিভাগ তারেক আল মামুনের লেখা তেলবাজ দেশাত্ববোধক কবিতা দেশের কবিতা দৈনন্দিন জীবন ধর্ম বিষয়ক আলোচনা নারী নারীকে নিয়ে কবিতা পপি প্রামানিকের লেখা পরশ্রীকাতর পর্যটন পল্লী কবিতা পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা ছায়াছবি পেত্নী প্রবন্ধ প্রবাস প্রবাসী প্রবাসের খবর প্রেমের কবিতা প্রেমের গল্প ফটো গ্যালারি ফরিদা ইয়াসমীন নার্গিসের লেখা বাবুনগরী পেলেন ৩ ভোট বাংলা কবিতা বাংলা গান বাংলা রোমান্টিক মুভি বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান বাংলার প্রকৃতি বিচ্ছেদের কবিতা বিরহের কবিতা বিরহের গান বেফাকের সভাপতি ভালবাসার কবিতা ভালবাসার গল্প ভালোবাসার অধিকার ভালোবাসার কবিতা ভালোবাসার গল্প ভুতের গল্প ভৌতিক গল্প মতামত মমতা পালের লেখা ময়না তদন্ত মায়ের কবিতা মিউজিক মোঃ সেলিম হোসেনের লেখা মোসা: সুলতানার লেখা রমজান আলীর লেখা রূপসী বাংলা রেখা দাসের লেখা রৌদ্রময় শাখাওয়াত হোসেন যাযাবরের লেখা শাহ সাবরিনা মোয়াজ্জেমের লেখা শেয়ার মার্কেট শ্রেষ্ঠ নারী সহিদুলের কবিতা সহিদুলের লেখা সাহিত্য সিলেটের আঞ্চলিক ভাষায় সংবাদ সুমন সিকদারের লেখা সুমিতা দত্ত কানুনগো এর লেখা সোনার বাংলা স্বপ্নের সিঙ্গাপুর স্বাধীনতার কবিতা স্বাস্থ কথা স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ


জান্নাতের চাবি
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
===========
=======
জান্নাতের চাবি মাগো, মা তুমি বিধির শ্রেষ্ঠ অনুদান, 
তোমার সেবা করে জীবন আমার হয় যেন অবসান।
মা যদি হয় কারো বিজাত অনুসারী,
তবু মায়ের, করতে হবে সেবা তোমারি।
থাকতে মা-ধন, কর যতন, দিয়া তোমার মনপ্রাণ,
জান্নাতের চাবি মাগো, মা তুমি বিধির শ্রেষ্ঠ অনুদান।
এই জগতে কত মূর্খ নেয়না মায়ের খবর,
হারিয়ে মা, জিয়ারত করে মায়ের কবর।
মূর্খমানব, লাভ হবেনা করলে মায়ের কবরের সম্মান,
জান্নাতের চাবি মাগো, মা তুমি বিধির শ্রেষ্ঠ অনুদান।
জন্মদাতা মাতা কারো হয় যদি অসতী,
তবু মায়ের সেবা বিনে নাইরে তোমার গতি।
মায়ের সেবা কর আগে, পাইতে বিধির কৃপা দান,
জান্নাতের চাবি মাগো, মা তুমি বিধির শ্রেষ্ঠ অনুদান।
এই সমাজে দেখি কত মূর্খ অকাতরে,
ধার্মিক সেজে বসে আছে মসজিদে, মন্দিরে।
হায়রে মূর্খ! কে বলেছে মাকে বাদে কর প্রভুর সেবা-দান,
জান্নাতের চাবি মাগো, মা তুমি বিধির শ্রেষ্ঠ অনুদান।
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
Sahidulsg@gmail.com

তোমার বদন স্মরণে মা
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
===========
=======
বিদায় বেলায় আমার মাথায় হাত দু'খানা রাখি,
আমার জন্য যখন মাগো ঝরলো তোমার আঁখি।
মাগো তোর কান্না আমি কি করে সই বল?
তোর বিরহে অন্তর আমার কাঁদছে অবিরল।
মাগো মা জান্নাত আমার কাঁদিসনা তুই আর,
তোর আঁখিজল মনে আঘাত করছে বারেবার।
মাগো, তুমি আমার, বিধির দেয়া শ্রেষ্ঠ উপহার,
তোমার বদন স্মরণে মা, নিমিষেই দূর অন্ধকার।
ভাগ্য আমায় করছে মাগো সুদূর প্রবাসী,
তুমি বিনা মাগো আমি নয়ন জলে ভাসি।
যেখানেতেই থাকিনা মা, আশিষ চাই তোমার,
মাগো মা জান্নাত আমার কাঁদিসনা তুই আর।
শুনরে ও দক্ষিনা হাওয়া, শুন না একটু আয়,
বলিস, যেন আমার জন্য কাঁদেনা মোর মা'য়।
আমার জন্য একটুও যদি কষ্ট হয় গো মা'র,
বিধির কাছে কি আর আমি জবাব দিব তার?
ও দয়াময় দয়ার সাগর আপে পরোয়ার,
তোমার নিকট বেশি কিছু নাইগো চাহিবার।
আমার জন্য হৃদয় যাহার হয়েছে ছারখার,
সেই গর্ভিণী মাকে দিও চির শান্তির দুয়ার।
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
Sahidul77@gmail.com
০৪/০৪/২০১৬

স্বাধীনতার অমূল্য বানী
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
===============
আমি অবাক হয়ে যাই,
কি করে এখনো ওদের গায়ে পাকি প্রেতাত্মা ভর করে,
একজন সুস্থ মস্তিষ্কের মানুষ হলে কি কেউ ভাবতে পারে
পাকিস্তান তার জান,
পাকিস্তানের জন্যে সে হতে পারে কোরবান।
ঘৃণায় আমি কুৎসিত হয়ে যাই,
যখন দেখি কিছু কুসন্তান
বাংলার জমিনে ঘুমিয়ে স্বপ্নে পাকিস্তান দেখে
আমি নিশ্চিত,
এবং আমি শুধু নিশ্চিত নই,
ল্যাবরেটরিতে পরিক্ষা করে দেখ
ওদের গায়ে এখনো বহে পাকি রক্তের বান,
তাই ওদের থেকে সকলে হয়ে যা সাবধান
আমি লজ্জায় লাল হয়ে যাই,
কি করে কোন মানুষ স্বাধীনতার এতো বছর পর
শহিদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারে?
একটি মীমাংসিত বিষয়,
এনিয়ে কি কোন সংশয় থাকতে পারে?
এ কি সংশয়? না কি ভীমরতি ?
না কি বেহায়াপনা ?
না নাহ, এ কোন সংশয় নয়,
এ কোন ভীমরতি বা বেহায়াপনাও নয়,
শহিদের নিয়ে যারা বিতর্ক সৃষ্টি করে,
ওরা মুক্তিযুদ্ধ চায় নি,
ওরা দেশের স্বাধীনতা চায়নি,
ওরা যে এখনো স্বাধীনতা চায়না
ওদের বক্তব্যেই তা পরিষ্কার
ওরা পাকিস্তানি রক্তে গড়া মানুষ নামের কিট,
ওদের সাথে আমাদের নাই কোন রিট,
যারা এদেশ চায়নি তাদের তো এদেশে থাকারই অধিকার নাই,
আমি নির্বাক হয়ে যাই,
যখন নব্য রাজাকাররা বলে বংগবন্ধু নাকি এদেশের স্বাধীনতা চায়নি!
আমি অবাক হয়ে যাই,
যখন নব্য মির্জাফররা বলে বংগবন্ধু নাকি পাকিবন্ধু!
আমি আশ্চর্য হয়ে যাই,
যখন নিমকহারামরা বলে যার কোন অবদান নাই
তাকেই নাকি জাতিরপিতা বানানোর চেষ্টা করা হচ্ছে
ছোট্ট একটি কথা মনেপরে গেল,
এক ছেলে পিতাকে বলছে,
বাবা তুমি কোথায় বিয়ে করেছো ?
পিতা বলছে, তোমার নানার বাড়িতে,
ছেলে বলছে, বাবা তুমি একটা বোকা,
বাবা বলছে, কেন?
ছেলে বলছে, তুমি যদি অন্য বাড়িতে বিয়ে করতে
তাহলে আজকে আমাদের একটা ইষ্টিবাড়ি বেশি থাকতো
আমি হাসবো না কাঁদবো? বুঝিনা,
আজকে ওরা যদি ছোট বাচ্চার মত কথা বলতো তবু মনকে বুঝানো যেত,
ওরা ছোট বাচ্চার চেয়েও অধম,
তাই, শুধু বলি, ওই শয়তানের দল,
তোমরা শুনতে পাওনা সেই ভাষণ?
যে ভাষণ বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ভাষণ,
যে ভাষণে শয়তানদের আত্না কেঁপে উঠেছিল,
যে ভাষণে ছদ্মবেশী পাক দালালের অন্তরে কাঁপন ধরিয়েছিল,
যে ভাষনে মানুষরূপী শয়তানের আজো দিশেহারা হয়,
যে ভষনে, বাঙ্গালীর মুক্তির কান্ডারি বলেছিলেন,
“এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম,
এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম।”
তোমাদের কি ইচ্ছা জাগেনা,
স্বাধীনতা সংগ্রামের এই অমিয় বানি শুনতে?
তোমাদের কি মনে চায়না,
মহাপুরুষের সেই স্বাধীনতার অমূল্য বানী শুনতে?
তোমাদের কি সাধ হয়না,
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাংগালীর শ্রেষ্ঠ ভাষণ শুনতে?
তোমাদের কর্ণকুহরে কি আল্লাহতালা সিসার ঢালাই করে দিয়েছেন?
এতকিছুর পরও আমার আঁখিযুগল স্নিগ্ধতায় ভরে যায়,
যখন দেখি, এতদিন পরে হলেও বিচারের রায় আসে
পথভ্রষ্ট সৈনিকের অপকর্মের দ্বারা গঠিত দলের শাসন অবৈধ,
আর এই অবৈধতার গ্লানি সইতে না পেরে ওরা যা খুশি তাই বলছে,
যা খুশি তাই বলার নাম কি স্বাধীনতা?
স্বাধীনতার মানে কি আমার দেশের স্বাধীনতাকে প্রশ্নবানে জর্জরিত করা?
স্বাধীনতার মানে কি ৩০লক্ষ শহিদের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো?
স্বাধীনতার মানে কি বঙ্গপিতাকে অস্বীকার করা?
স্বাধীনতার মানে কি মানুষ পোড়ানো ?
স্বাধীনতার মানে কি ভাল না লাগলেই শহিদমিনার ভাংবো?
স্বাধীনতার মানে কি পতকা পুড়াবো?
যা খুশি তাই করার নাম স্বাধীনতা হতে পারেনা।
অতএব, জাগো বাংগালি জাগো,
এখনো সময় আছে জাগো
ছদ্মবেশী পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে জাগো।
নইলে ওরা কিন্তু ঠিকি বলবে,
৭১ এ যা হয়েছে ওটা কিছু নয়,
যা হয়েছে তা ভুল বুঝাবুঝি মাত্র,
এবং ওই ভুল বোঝাবুঝিতে কোন হতাহতই হয়নি।
তাই, ছদ্মবেশী পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে আমরা যদি না জাগি,
আমাদেও শহিদের রক্তের সাথে বেঈমানি হবে,
এই বেঈমানির কোন মাফ নেই,
কোন একদিন বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতেই হবে।
তাই শুনো বাংগালি শুনো,
এসো নিজেকে বিচারের কাঠগড়ার দাঁড় করানোর আগেই
ঐ ছদ্মবেশী পাকিস্তানী বেঈমান, মিরজাফরদের
বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাই।
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
সিংগাপুর
মার্চ-২০১৬


আমার নাম বাংলাদেশ
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
=============
ট্যাঙ্ক, কামান আর মর্টারের মুহুর্মুহু আঘাতে
আমার নিরস্ত্র সবুজ ঝাঁঝরা বুকের উপর আলোহিত যে মানচিত্র
তার নাম বাংলাদেশ।
শোষন, অপশাসন ও বঞ্চনার উদর ভেদিয়া
 সেদিন পৃথিবীর আলো দর্শন করেছিল
এক শিশু,
যে শিশু, বাহান্নের আগুন ঝরা ফাগুনে,
মাতৃ জঠরে, যার ভ্রূণ।
এরপর, ছাপ্পান্ন, ছেষট্টি, ঊনসত্তরে গর্ভকোষে বেড়ে উঠা,
এক সাগর নিষিক্ত রক্তের স্রোতধারায়,
গর্ভিণীর উদরে বুটের প্রহারে প্রহারে যার জন্ম,
তার নাম বাংলাদেশ।
আমার ধূলিমাখা তন্বী সরণির ধারে,
জনশূন্য অঁচলে, গভীর তরূবীথিকায়
কিংবা ছোট্ট জলাশয়ের ধারে,
আলোহিত কৃষ্ণচূড়া কিংবা পলাশ, শিমুলের রক্তিম আভায়,
রমনার প্রান্তরে পুণ্য রক্তের নহর,
অতঃপর সবুজ ঘাসের চাদরে লাল সূর্যের দীপাবলি।
শক্ত হাড় মাংসের বুনিয়াদ,
মাটি-প্রানের তৈলাক্ততা, চটচটে রক্তের জমিয়া-জমান পিণ্ড,
আর এক গর্তে বেশুমার আত্মার অবসন্ন ব্যাকুল কামনা,
এবং একটা স্বপ্নাবেশের নাম
বাংলাদেশ।
অর্জন আর বিসর্জনের রক্তরাগ সমীকরণ,
একটা চরম বিভীষিকাময়,
দুঃস্বপ্নের পরিসমাপ্তি নাম
বাংলাদেশ।
আমার শৃঙ্খল-পরম্পরায় মুক্তির টান,
উচু-নিচু, ভেদাভেদ ভুলিয়া হৃদয়ে হৃদয়ের টান,
তবু মিলেনি মুক্তি,
জীবন্ত আত্মার আকুতি,
নিষ্প্রাণ আত্মার ফুঁপিয়ে ওঠা কান্নার নিদারূণ নীরব আর্তনাদ,
কোটি জনতার কর্ণে বাজে মরা আত্মার ছায়ার নিস্বন।
ক্ষুধার্ত শিশুর চিৎকার
কিংবা শরণার্থী শিবিরে কুকুর শেয়ালে খাওয়া লাশ,
বোবা কান্নায় নির্বাক চেয়ে থাকা নারীর মুখ,
কাক ঠুকরানো বিক্ষত বাঙ্গালীর লাশ,
লাশ নিয়ে কুকুরের টানাটানি,
আশ্রয়ের খোঁজে শত শত নারী-পুরুষের উন্মত্ত আর্তনাদ,
 বিবস্ত্র নারীর লাঞ্ছনার ছবি,
পাক জানোয়ারের লোমহর্ষক নির্যাতন, নৃশংসতার পরিসমাপ্তির নাম
বাংলাদেশ।
আমার এক লক্ষ সাতচল্লিশ হাজার বর্গমাইলের
প্রতি ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে
দীর্ঘ নয় মাস ধরে লক্ষ লক্ষ পাকি পশুদের
পাশবিক কামনায় রক্তাক্ত মা-বোন
প্রতিনিয়ত বাধ্য হয়ে ইজ্জত বিলিয়ে দেয়া নারী,
হায়েনাদের কামড়ে কামড়ে ছিলে নেয়া নারীর রক্ত মাংস,
বন্দুকের নল-বেয়নট দিয়ে খুচিয়ে ক্ষত বিক্ষত নারীর বুক, উরু, গুপ্তাঙ্গ,
নিদারুন দম বন্ধ করা এই নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে
অচেতন বীরঙ্গনারা হঠাৎ জেগে
আবার আঁতকে উঠেছে,
 তার চোখের সামনে, মুখের উপর
বারেবার গলে পড়ছে পাকি মুখনিঃসৃত কামনার লালা।
তবু নির্লিপ্ত আর্তনাদে বীরাঙ্গনাদের বাঁচার আকুলতা,
তার নাম বাংলাদেশ।
ট্যাঙ্ক, কামান আর মর্টারের আঘাত থেমেছে হয়তো,
থামেনি এখনো মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার আঘাত,
এও থামবেই একদিন,
সেদিন নিরদ ঝরাবে সুখের আঁখিজল,
যে জলে ভরে যাবে পদ্মা, মেঘনা, যমুনা
যে জলে দুকুল ছাপিয়ে প্লাবিত হবে জমিন,
যে জলে সবুজেরা পাবে তার চিরায়ত রূপ।
বাংলার সংস্কৃতিতে মাতবে বাঙ্গালী
জোস্নার অবগাহনে জমে উঠবে রাতের উৎসব,
তারায় তারায় খচিত রজনীতে
মাতবে যেদিন আপন মেহফিলে,
তোমরা ভুলে যেওনা আমাকে,
যার বুলেটে ঝাজরা বুক, বেয়নটে খুঁচানো সম্ভ্রম হারা নারীর বুক,
কামানের আঘাতে ছিন্নভিন্ন দেহ,
নির্বাক নারীর বোবা কান্না,
সহস্র-কোটি অভিমান আর ভালবাসার নাম
অধিকার
স্বাধিকার
স্বদেশ,
বাংলাদেশ।
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
সিঙ্গাপুর
২৬/০৩/২০১৬


নারী প্রেমে মজরে মন (সংগীত)
(বিশ্ব নারী দিবস উপলক্ষে)
নারী হলো মায়ের জাতি, জান্নাতের চাবি,
মায়ের সেবা কর সবে, জান্নাতে কে যাবি?
নারীর সেবা কর সবে, জান্নাতে কে যাবি?
নারী হলো মায়ের জাতি, জান্নাতের চাবি।
নারীর সেবা কর সবে, জান্নাতে কে যাবি?
কন্যা আছে যাহার ঘরে, এই সংসারে,
হাদিস বলে, আল্লাহ আমার জান্নাত দিবে তারে,
পুত্র থাকলে গ্যারান্টি কি তার, বেহেস্ত তুই পাবি,
মেয়ের যত্ন করলে পরে, স্বর্গ সুখে র'বি,
নারীর যত্ন করলে পরে, স্বর্গ সুখে র'বি,
নারী হলো মায়ের জাতি, জান্নাতের চাবি।
নারীর সেবা কর সবে, জান্নাতে কে যাবি?
সংসার সুখের হয় রমনীর গুনে,
চিরসত্য একথাটি কে না বলো জানে?
সকল জেনে নারী নিন্দায় মেতে কেন র'বি?
রমনীকে ভালবাস তুই, সুখী যদি হবি,
নারী প্রেমে মজরে মন তুই, সুখী যদি হবি,
নারী হলো মায়ের জাতি, জান্নাতের চাবি।
নারীর সেবা কর সবে, জান্নাতে কে যাবি?
এই জগতে অনেক মূর্খ নারী ঘৃণা করে,
বিনয় করে একটি কথা জিজ্ঞাসিব তারে,
ভবে আসার পূর্বে তুমি, ছিলে যার উদরে,
কেমনতর মূর্খমানব, ঘৃণা কর তারে,
সময় থাকতে বুকে ধারো, পুন্য মায়ের ছবি,
সময় থাকতে নারী পূজ, জান্নাত যদি চা'বি,
নারী হলো মায়ের জাতি, জান্নাতের চাবি।
নারীর সেবা কর সবে, জান্নাতে কে যাবি?
নারী হলো অর্ধাঙ্গিনী,
নারী হলো জীবন সঙ্গি,
নারী কন্যা, নারি ভগ্নি,
নারী হলো মা-জননী,
নারীই হলো সকল শক্তি,
কর তুমি নারী ভক্তি,
মাতা-নারী বেহেস্তেত মূল,
তাইতো ভেবে কয় সহিদুল, জান্নাত যদি চা'বি,
কর আগে মায়ের সেবা,
কর আগে নারীর সেবা, তাইলে সফল হবি,
নারী হলো মায়ের জাতি, জান্নাতের চাবি।
নারীর সেবা কর সবে, জান্নাতে কে যাবি?
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
সিংগাপুর
০৮/০৩/২০১৬


কোটি কোটি মানুষের তুমি প্রিয় মুখ
(৭ই মার্চের শ্রেষ্ঠ ভাষণ স্মরণে)
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
জানি তুমি আসবেনা ফিরে কোনদিন,
জানি মোরা পারবোনা শোধিতে তোমার ঋণ,
তবু তোমার তরে,
অধমের অন্তরে,
নিত্য নিরন্তর জ্বলে রাবণ চিতা,
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
কোটি কোটি মানুষের তুমি প্রিয় মুখ,
তোমার স্মৃতিতে মোরা খুঁজে ফিরি সুখ,
জানিগো হবেনা দেখা,
ওগো মোর প্রিয় সখা,
তাইতো উত্তাল মার্চে স্মরণ করি হেথা, মহান স্বাধীনতা,
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
স্বাধীনতার প্রদীপ তুমি দিয়ে গেছ জ্বালি,
তুমি ছাড়া প্রিয়ভূমি লাগে শুধু খালি,
জানি আসবেনা ফিরে,
মেঘনা যমুনার তীরে,
তবু, তোমায় পাবার আশে মনে আকুলতা,
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
উত্তাল মার্চে তুমি করেছিলে আহবান,
রেখেছিল বাজি তাই বাংলার লাক্ষো প্রাণ,
মুক্তির জোয়ারে,
বাংলার দুয়ারে,
তোমার ওছিলায় পেলাম মহান স্বাধীনতা,
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
তোমার আহবানের প্রদীপ জ্বালি,
৩০ লাখ সেনানীর পুন্য রক্ত ঢালি,
উড়াল বিজয় কেতন,
বাংলার মানিক রতন,
বিজয় কেতনে ভাসে তোমার উদারতা,
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
হে বাঙালী জাতির মুক্তির দিশারী,
আমি যে তোমার শুধু প্রেমের অভিসারী
হৃদয়ে প্রেম আমার আছে যত,
তোমাকে সপে যাই আমি অবিরত,
জানি তুমি ফিরবেনা, শুধু বিষন্নতা,
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাংগালি, তুমি ইতিহাস,
তোমারি আনুকূল্যে প্রিয় ভূমে বাস,
তোমার কন্ঠস্বরের ধ্বনি
আজো কান পেতে শুনি,
জয়বাংলার স্লোগানে অম্লান রবে হে মহান নেতা,
ওগো মোর প্রিয় নেতা,
ওগো মোর জাতির পিতা,
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
সিংগাপুর
০৭/০৩/২০১৬

বাংলার রক্তাক্ত ইতিহাস
৫২ দেখনি আমি,
তাই সময়তে নিজেকে খুব আটকপালে মনে হয়,
কারণ আমি সাক্ষী হতে পারিনি ভাষা আন্দোলনের
আবার, মনে হয় আমি খুবই সৌভাগ্যভান,
কারণ, আমি এমন দেশে জন্মেছি,
যে দেশের তুলনা করার মত ২য় কোন দেশ নেই,
যে দেশের সন্তানেরা মায়ের ভাষার জন্য প্রান দিয়েছে।
৫২ দেখিনি আমি, তবু আমি গর্বিত,
কারন মহান সৃষ্টিকর্তা অপরিমেয় মূল্যের দুটি আঁখি দিয়েছেন,
যে আঁখি দিয়ে আমি দেখি,
বাংলার গর্বিত ইতিহাস,
বাংলার রক্তাক্ত ইতিহাস,
রমনার রক্তাক্ত প্রান্তরের ইতিহাস,
ভাষা শহিদের প্রান উৎসর্গ করার ইতিহাস।
আমি আরও গর্বিত,
কারণ, মহান সৃস্টিকর্তা আমাকে গবেট করে জন্ম দেননি,
আমি হয়তো বারিস্টার বা পিএইচডি ডিগ্রি নিতে পারিনি,
তাতেও আমার দুঃখ নেই,
কারণ, ইতিহাস পরতে পিএইচডি লাগেনা,
ইতিহাস জানতে বড় বড় ডিগ্রিরও প্রয়োজন হয়না,
প্রয়োজন হয় শুধু সৎ উদ্দেশ্য এবং শিক্ষা।
ইতিহাসের গঙ্গায় আজো বহমান,
সেই রমনার ঊর্ধ্বমুখী কৃষ্ণচূড়ার তলে প্রবাহিত রক্তের বন্যা,
আজো রক্তে লাল কৃষ্ণচূড়ায় ভেসে উঠে ওদের ছবি,
যারা কৃষ্ণচূড়ার লোহিত পাপড়ির মত
সেদিন ঝরে গিয়েছিল রমনার কৃষ্ণচূড়ার তলে,
আজো সবুজ ঘাসের শিশির বিন্দুর উপর ভেসে উঠে ওদের ছবি,
যাদের রক্তে সেদিন রক্তরাগ হয়েছিল রমনার সবুজ ঘাস।
৫২ দেখিনি আমি, তাতে কি!
আমি কি এতটাই জরাগ্রস্ত?
আমি কি এতটাই দেউলিয়া?
যে শহিদের পবিত্র রক্তে মায়ের ভাষা ফিরে পেলাম,
যে শহিদের পুণ্য রক্তে ২১শে ফেব্রুয়ারি পেলাম,
তাদেরকে নিয়ে মনে দ্বিধা ধারণ করবো?
আমি কি এতটাই অথর্ব?
যাদের বিনিময়ে দেশ পেয়েছি,
সেই ৩০লক্ষ পুণ্য আত্মা নিয়ে ইয়ারকি করবো?
৫২ দেখিনি আমি, তাই বলে কি,
আমি ক্ষমতার মসনদ হারানো উন্মাদ?
যে উন্মত্ততায় ৩০ লক্ষ পুণ্য আত্মাকে এক এক করে খুঁজতে হবে?
যে উন্মত্ততায় অস্বীকার করবো তাদের?
যারা আমার মায়ের ভাষাকে নির্বাসন থেকে ফিরিয়ে এনেছিল।
৫২ দেখিনি আমি, তাতে কি?
আমি অস্বীকার করতে পারিনা ভাষা আন্দোলন,
আমি অস্বীকার করতে পারিনা ৭১এর ইতিহাস,
আমি অস্বীকার করতে পারিনা রমনার রক্তাক্ত ইতিহাস,
আমি অস্বীকার করতে পারিনা ৩০লক্ষ শহিদের ইতিহাস,
আমি অস্বীকার করতে পারিনা ভাষা শহিদের পুণ্য আত্মার ইতিহাস,
মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
সিঙ্গাপুর
২১/০২/২০১২

ডাক্তারদের মহানুভবতা এবং ভুলের জন্য ড: আসিফ নজরুলের ক্ষমা প্রার্থনা।

ডাক্তারদের মহানুভবতা এবং ভুলের জন্য ড: আসিফ নজরুলের ক্ষমা প্রার্থনা। খুন বা ধর্ষনের ঘটনায় ডাক্তারদের ময়না তদন্তে কখনো কখনো ভুল হয়. এজন্য বিচ...

MD SAHIDUL

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget