February 2021
৬৪ জেলার ইতিহাস Aparupa Bengali Romantic Movie অতীত অন্যান্য অপরুপা অর্থিনীতির সংবাদ আইন-আদালত বিষয়ক পরামর্শ আকাঙ্খা আজিজুন নাহার আঁখির লেখা আঞ্চলিক সংবাদ আন্তর্জাতিক খবর আমার জীবন আমার স্বাস্থ আল্লামা মাহমুদুল হাসান ইচ্ছে ইতিহাস উন্নত স্বাস্থ কথা ঐতিহ্য ওমর ফারুকের লেখা কঙ্কাল কবিতা কমল কুমার রায়ের লেখা কয়েসাবা'র লেখা কিভাবে নিঃস্ব হয় শেয়ার মার্কেট খালিদ বিন আকরামের লেখা খেলা খেলাধুলা গ্রাম্য কবিতা চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষার খবর চাটুকার ছোট গল্প জাতীয় জাতীয় সংবাদ জিবাংলা আঞ্চলিক সংবাদ জীবনযাপন জেসমিন আকতারের লেখা জ্বীন-পরী ড: আসিফ নজরুল ডাকাত ডাকাতি ডাক্তারদের মহানুভবতা তথ্য এবং প্রযুক্তির সংবাদ এবং পরামর্শ তথ্য বিভাগ তারেক আল মামুনের লেখা তেলবাজ দেশাত্ববোধক কবিতা দেশের কবিতা দৈনন্দিন জীবন ধর্ম বিষয়ক আলোচনা নারী নারীকে নিয়ে কবিতা পপি প্রামানিকের লেখা পরশ্রীকাতর পর্যটন পল্লী কবিতা পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা ছায়াছবি পেত্নী প্রতিবাদী কবিতা প্রবন্ধ প্রবাস প্রবাসী প্রবাসের খবর প্রেমের কবিতা প্রেমের গল্প ফটো গ্যালারি ফরিদা ইয়াসমীন নার্গিসের লেখা বাবুনগরী পেলেন ৩ ভোট বাংলা কবিতা বাংলা গান বাংলা রোমান্টিক মুভি বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান বাংলার প্রকৃতি বিচ্ছেদের কবিতা বিরহ ব্যথা বিরহের কবিতা বিরহের গান বেফাকের সভাপতি ভালবাসার কবিতা ভালবাসার গল্প ভালোবাসার অধিকার ভালোবাসার কবিতা ভালোবাসার গল্প ভুতের গল্প ভৌতিক গল্প মতামত মমতা পালের লেখা ময়না তদন্ত মায়ের কবিতা মিউজিক মুবারাত আহনাফ তাহমিদের লেখা মোঃ সেলিম হোসেনের লেখা মোসাঃ জান্নাতুল মাওয়ার লেখা মোসা: সুলতানার লেখা রত্না রায় চৌধুরীর লেখা রমজান আলীর লেখা রূপসী বাংলা রেখা দাসের লেখা রৌদ্রময় শাখাওয়াত হোসেন যাযাবরের লেখা শাহ সাবরিনা মোয়াজ্জেমের লেখা শেয়ার মার্কেট শ্রেষ্ঠ নারী সহিদুলের কবিতা সহিদুলের লেখা সাহিত্য সিলেটের আঞ্চলিক ভাষায় সংবাদ সুমন সিকদারের লেখা সুমিতা দত্ত কানুনগো এর লেখা সোনার বাংলা সোহরাব হোসেনের লেখা স্বপ্নের সিঙ্গাপুর স্বাধীনতার কবিতা স্বাস্থ কথা স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ স্মৃতি হাসনাহেনা রানুর কবিতা

শব্দ শিকারী
হাসনাহেনা রানু
সেদিন চোখের পাতার সবুজ তিলটা অত কথা বলেনি ঠোঁটের বাঁকে ধোঁয়াটে তিল , এক দুরন্ত নীরবতা ভেঙ্গে গাঢ় স্বরে কথা বলেছে : এক তিলের জন্য মুঠো ভর্তি নক্ষত্ররা ও ম্লান হয়েছে ... কেননা, তিলের সৌন্দর্য প্রখর ! মেঘ মুক্ত স্বচ্ছ নীলাকাশের মতো -- যেন গোলাপে প্রথম বৃষ্টির ফোঁটা , কিম্বা ভোরের সাদা ঠোঁটের ঘাস বুকে এক বিন্দু শিশির ; সাগরের বুকে জলের নকশায় ঢেউ আঁকা গল্পরা ভেসে বেড়াচ্ছে সন্ধ্যার আকাশ ছুঁয়ে দূর দূরান্তে , শ্যামল সবুজ ঘন জলে মিশে গেছে প্রেমিকার চোখের জল : শীর্ণতায় কি কাঁপছে শরীর লুকোচুরি খেলার ছলে -- সীমানার ওপারে , অধরোষ্ঠের কম্পন সুস্থির চিবুকের স্পর্শে অবিরাম দগ্ধ হল দু'টি সুঢৌল বিত্তান্ত নীল রঙে ------ আমি শব্দ শিকারী ; --- তুমি কবিতার ঠোঁটে তিলোত্তমা তিল .. অজস্র অক্ষরের ভালবাসার ছোট্ট এক তিল কবিতার শিরোনামকে মনোরম করে তুলেছে ... একজন প্রেমিক বলেছিল, প্রেমিকার ঠোঁটের ছোট্ট তিল নারী মনের শ্রেষ্ঠ রং ছড়ায়, আকাশের পূর্ণিমা চাঁদ হয়তো নেমে আসবে তিলের পাশে -- একজন কবির কথা : প্রেমিকার ঠোঁটের ছোট্ট তিল পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ শব্দ শ্রেষ্ঠ কথা!


জীবন্ত ফসিল
শাহ সাবরিনা মোয়াজ্জেম
চোখের নিমিষেই চোখের সামনেই ধুলো উড়ানো অতীত! গতদিনের চিঠির বাক্স আজ বড্ড মলিন! গতদিনের চঁড়ুইয়ের বাসাটা আজ উধাও! অকেজো ল্যান্ড ফোনটার গায়ে অযাচিত মাকড়সার জাল! ব্যাপার খানা দারুণ বিস্ময়ে অবাক কেননা সবাক চিত্র হয়ে চিরকুট গুলো এখনো রঙ্গিন! অযত্নে রাখা কার্ড গুলো এখনো জীবন্ত! তাই ভেবেছি ডাকবাক্সে বেনামে ফেরত পাঠাবো চিঠি আর কার্ড গুলো! কারো অস্তিত্ব জমে না থাক! তবুও মনের ঘরে আতিপাতি করে অবসরে কিছু অতি দরিদ্র ক্ষণ! জেগে আছে চর! চরের পারাবারে ই যেনো রং চটা খেলাঘর আর কুটুম পাখির এক রোখা ডাক! আর কতো গীতিময় জীবন! আর কতো ফেলে আসা লাঙ্গল কোদালহীন জীবন! আমিও যে দিন দিন বড্ড অকেজো হয়ে পরছি! পরম মমতায় উত্তরসুরীরা খুটিয়ে খুটিয়ে দেখছে আমার বাধর্ক্যের ডাক! চামড়া ঝুলছে, দেহ দুলছে কাঁচা পাকার রূপান্তরিত হচ্ছে ঝরে পড়া চুল গুলো! আমি আয়নার কাছে আর আয়োজন করে আর দাড়াইনা! আমি যেনো আয়নার কাছে আদীম রূপসী নারী থেকে বুড়ো বন বিড়ালে রূপ নিচ্ছি! গলার স্বর বদলে যাচ্ছে নিশ্চুপ! কৃত্রিমতায় ঢেকে দিচ্ছি নিজেকে! কিন্তু মনে আদৌ শান্তি নেই! তাই একাকী দাঁড়িয়ে বন্ধ বারান্দায় নিঃশ্ব চরাচরে আমি একা,একেলা অবিচ্ছেদ্য ভাবে শুধু খোলস ছড়ানো জীবন্ত ফসিল!


অবাক অনুরাগ হাসনাহেনা রানু
একমুঠো মেঘ এক গুচ্ছ নক্ষত্র ফুল, এক শ্রাবণ বিকেল —— তোমার পাঠানো প্রজাপতি চুমু: সব আমি খেয়ে বসে আছি ——- রূপসার পাড়ে, চোখের তারায় নীল আকাশ ভাসে — রাত্রিটা এখন গোলাপ বাগানে … আমি একটি গোলাপ ও স্পর্শ করতে পারিনা, হয়তো অভিমান … তোমার জন্য ; কথা ছিল একদিন তুমি আমায় গোলাপ দেবে —– জানিনা, সেই একদিন কখনো আসবে কিনা — তুমি একদিন এ পথেই আসবে, তোমার শেষ গন্তব্য আমি … তুমি ভুল করে হলেও একবার এ পথে আসবে, এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস! তোমার দু’হাতে কিছু গোলাপ থাকবে, তুমি নীল গোলাপ নিয়ে এসো আমার নীল গোলাপ চাই —– নীল গোলাপ আমার খুব প্রিয়! ঘুমন্ত সন্ধ্যা ফুটন্ত সকাল, উদ্ভ্রান্ত রাত্রির মায়া সব আমি কবিতায় লিখে বসে আছি ——- তোমার সাজানো বিকেলের স্বপ্ন, তোমার মায়াময় প্রজাপতি ভালবাসার আবেগ — নিবিড় সান্নিধ্য, তোমার ব
্যাকুলতা তোমার মোহনীয় মুগ্ধ দৃষ্টি সব সব আমি খেয়ে বসে আছি! তুমি যদি না আসো … আমার স্বপ্ন ভেঙ্গে খান খান হবে সবটুকু অভিমান এক আকাশ নীল হয়ে যাবে..!


তুমি -২ হাসনাহেনা রানু একটা নগন্য পাথরকে ও দামী কিম্বা স্বর্ণের চেয়ে মহার্শ রত্ন ভেবে, অনামিকায় ঠাঁই দেয়া যায়.. যদি সেটা তোমার আঙ্গুল হয় — একটা গন্ধময় ঘেঁটো ফুলকে সুন্দর একটা মালায় সাজানো যায়, সুরভিত জেনে কুন্তলে গুজে রাখা যায় — যদি সেটা তোমার চুলের খোঁপা হয় ….! কাজল কালো নয়ন রেশমী চুড়ি, কিম্বা আলতা, নীল শাড়ির আচ্ছাদন… জড়িয়ে দেয়া যায় একান্ত আপন হাতে — যদি সেটা তোমার অঙ্গ হয় – মৃত্যুর বার্তাবাহী এক পেয়ালা বিষকে হাসি মুখে গলায় ঢেলে নেয়া যায়, যদি তুমি সেটা তুলে দাও আপন হাতে ..! বিষের অবগাহনে আমি হব বড়ই তৃপ্ত । একটা ক্ষত-বিক্ষত মনকেও পৃথিবীর আর সব অক্ষত মনের চেয়ে, বেশি আপন ভেবে সমস্ত সত্ত্বায় গেঁথে নেয়া যায় যদি সেটা তোমার মন হয়। কেননা আমার সমস্ত অনুভবে চলমান পৃথিবীর মত তুমিই রয়েছ দণ্ডায়মান। বিদগ্ধ বক্ষে… তোমার চৈতন্যের প্রহর খুঁজেছি এতো কাল ধরে , সীমাহীন অচেতনতায়: খুঁজেছি ….. পথ, ঘাট, মাঠ আকাশ, সাগর, পাহাড়ে কোথাও পাওয়া যায়নি তোমাকে —– বুঝেছি সকলই ব্যর্থ আমার; “তোমাকে পাব না এক জীবনে।”


বিরহ ব্যথা

হাসনাহেনা রানু


ঠোঁটের বাঁকে এক চিলতে দুষ্টু হাসি দেখে

তুমি বলেছিলে –

এ কিসের হাসি ?

আমি চঞ্চলা হরিণীর মত বললাম,

তোমাকে ভালবাসি…..

এ সেই আনন্দের বহিঃ প্রকাশ,

তুমি বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিলে অমনি !


একদিন আমার কাছ থেকে তুমি বিদায় চাইলে,

আমি কাঁদলাম —

তুমি আমার চোখের জল স্পর্শ করে বললে,

এ কিসের জল ?

আমি বিরহ বেদনায় নীল হতে হতে বললাম,

তুমি আমায় ছেড়ে যাচ্ছ

এ সেই কষ্টের ( নোনাজল) বহিঃপ্রকাশ

অমনি তুমি ছিটকে গেলে কিছু দূর !

আমার বুকের গভীরে ক্ষত সৃষ্টি করে

সত‍্যিই তুমি চলে গেলে…?

আমি শুধুই চেয়ে চেয়ে দেখলাম,

দূরে যেতে যেতে সে তুমি চলেই গেলে

আমি কাঁদলাম !

শব্দ শিকারী _ হাসনাহেনা রানু

শব্দ শিকারী হাসনাহেনা রানু সেদিন চোখের পাতার সবুজ তিলটা অত কথা বলেনি ঠোঁটের বাঁকে ধোঁয়াটে তিল , এক দুরন্ত নীরবতা ভেঙ্গে গাঢ় স্বরে কথা ব...

MD SAHIDUL

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget