ADS

ভালোবেসে আমি নদী হতে চাই ❑ পপি প্রামানিক

ভালোবেসে আমি নদী হতে চাই

পপি প্রামানিক


শোন, রাজ!
তোমাকে ভালোবেসে আমি বহতা নদী হতে চাই।
হয়তো তুমি বলবে-- এটা আমার খামখেয়ালি।
তবে তোমাকে নিজের করে পাওয়ার জন্যই আমার এ বাসনা,
আর তোমাকে খুব খুব ভালো রাখতেই আমি স্রোতস্বিনী নদী হয়ে বয়ে যেতে চাই।
আমার দু'কূল উপচে পড়া নব যৌবনে তুমি আমাতে অবলীলায় অবগাহন করবে।
তুমি আমার ঢেউয়ে ঢেউয়ে ভেসে চলবে আমা হতে সমুদ্রে, সমুদ্র হতে মহাসমুদ্রের সেই বিশাল জলরাশিতে।
যেখানে তুমি মেতে উঠবে জলকেলিতে।
তোমার তৃষিত হৃদয় সিক্ত হবে,
আমিও ভালোবাসে পরিপূর্ণতা পাবো।
সেখানে থাকবে না বৈষম্যের চাদরে মোড়ানো সামাজিক নিয়ম নীতি,
থাকবে না কোনো জাত পাতের ভেদাভেদ।
তুমি তোমার দুঃখ কষ্টের সমস্ত কালিমা ধুয়ে মুছে পরিচ্ছন্ন হবে আমার ভালোবাসার বহমান ধারায়।
ঋতু বৈচিত্রের পরম্পরায় আমিও রূপ পাল্টাবো--
তুমি ভিন্নতর ভালোবাসার স্বাদ পাবে আমাতেই।
এই যেমন ধরো------
গ্রীষ্মের শুষ্ক নদীর তপ্ত বালুকার বুক চিরে উষ্ণ এতোটুকু জলধারায় চুপিচুপি ভালোবেসে তোমাকে সিক্ত করার প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা থাকবে।
আর বর্ষা!
বর্ষায় দু'কূল উপচে পড়া পাড় ভাঙা ঢেউ হয়ে আমার ভালোবাসার উন্মাদনায় তোমাকে ভাসিয়ে নিবো আমার বুকে।
যেখানে শুনতে পাবে আমার জীবনের সুখ-দুঃখের ভাটিয়ালি গান।
এরপর আমি যখন শরতের নদী হবো----
আমার বক্ষে ভালোবাসার ছলাৎ ছলাৎ ঢেউ বইবে,
স্নিগ্ধ নীল আকাশের বুকে থাকবে স্বচ্ছ পূর্ণিমার চাঁদ।
তুমি যখন আমার বক্ষে প্রেমালিঙ্গনে লিপ্ত হবে, চাঁদের আলোক রোশনাই বিচ্ছুরিত হবে আমাদের চারিপাশ।
আর আমার দু'ধারে থাকবে কাশ ফুলে সাজানো বাসর শয্যা।
হেমন্তে আমি হবো শান্ত নদী ----
তুমি হংস মিথুন হয়ে ভালোবাসায় মেতে উঠবে আমার বক্ষে।
শীতের হিম হাওয়ায় আমি অনেকটাই চুপসে থাকবো ---
তুমি আমার বক্ষে ঝাপিয়ে পড়ে আমাকে সচল করে জাগিয়ে নিও--- আমি ভালোবাসার উষ্ণতায় ভরিয়ে দিবো তোমার প্রতিটি মুহুর্ত ।
বসন্তে আমার বক্ষে কষ্টের চর জমতে শুরু করবে---
তুমি না হয় কোকিল হয়ে এসো--
আমি আমার ভালোবাসার স্বল্প ধারায় বসন্ত সমীরণে তোমায় বাসন্তী রঙে রাঙিয়ে দিবো।
রাজ!
এবার হয়তো তুমি বলবে না---
নদী হতে চাওয়াটা আমার খামখেয়ালি।
সত্যি সত্যি আমি বহতা নদী হতে চাই ---
নদী হয়ে আমার বক্ষে ভালোবাসার আলিঙ্গনে তোমাকে আজীবন আগলে রাখতে চাই।

Post a Comment

0 Comments